ডিজেবলড শিক্ষার্থীদের জন্য ক্যাপিটাল পরিকল্পনা

5

ঠিকানা রিপোর্ট: শিক্ষা মানুষের মৌলিক অধিকার হলেও নিউ ইয়র্ক সিটির পাবলিক স্কুলগুলোর প্রতি ৬টির মধ্যে মাত্র ১টিতে অর্থাৎ ১৬% স্কুলে ডিজ্যবলড (শারীরিক বৈকল্যযুক্ত বা পঙ্গু) শিক্ষার্থীদের প্রবেশের সুযোগ ছিল। এই গুরুতর সমস্যার যুক্তিসিদ্ধ সমাধানকল্পে স্কুল চ্যান্সেলর রিচার্ড কারানজা ১৭ বিলিয়ন ডলার ব্যয় সাপেক্ষ একটি ক্যাপিটাল প্ল্যান প্রকাশ করেছেন। প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী সিটির বিদ্যালয়গুলোতে ডিজ্যবলড (শারীরিক বৈকল্যযুক্ত) কিডদের সহজে চলাচল নিশ্চিত করতে এবং শিক্ষার ব্যাপক উন্নয়নকল্পে উক্ত ক্যাপিটাল প্ল্যান স্কুল চ্যান্সেলর রিচার্ড কারানজা গ্রহণ করেছেন।
চ্যান্সেলর কারানজা ৩ নভেম্বর বলেন, সিটি বিদ্যালয়ে পঙ্গু এবং দৈহিক বৈকল্পবিশিষ্ট কিডদের সহজে চলাচল নিশ্চিত করা, জনাকীর্ণ শ্রেণীকক্ষগুলোতে বাড়তি আসন সংযোজন, শ্রেণীকক্ষের মানোন্নয়ন এবং বাস্তুহারা ছাত্রÑছাত্রীদের জন্য পরিষেবা সম্প্রসারণ করতে মাথাপিছু ১৫ হাজার ডলার হারে কমপক্ষে ১৭ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করা হবে। কুইন্স পাবলিক স্কুল ১১-তে এক সংবাদ সম্মেলনে চ্যান্সেলর কারানজা আমেরিকার সর্ববৃহৎ স্কুল সিস্টেমের ১৭ বিলিয়ন ডলার ব্যয় সাপেক্ষ ৫ বছর মেয়াদী ক্যাপিটাল পরিকল্পনার হোমলেস প্রোগ্রামসহ বিভিন্ন প্রকল্পের বিশদ বিবরণ তুলে ধরেন।
২০২০ সাল থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত ৫ বছর মেয়াদী পরিকল্পনার আওতায় ১১ লাখ স্কুল ছাত্র-ছাত্রীর জন্য মাথা পিছু ১৫ হাজার ডলার হারে উক্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে বলে কারানজা জানান। নিই ইয়র্ক সিটির শিক্ষা ইতিহাসের সর্বাপেক্ষা তাৎপর্যমন্ডিত উক্ত পরিকল্পনার সপক্ষে জনমত গড়ে তোলার জন্য বেশ কয়েকটি সভায় কারানজা সর্বসাধারণের মন্তব্য সংগ্রহ করবেন। তারপর সিটি কাউন্সিল প্রস্তাবটির ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণ করবে এবং প্যানেল ফর এডুকেশনাল পলিসি প্রস্তাবটির উপর ভোট গ্রহণ করবে। মেয়র বিল ডি ব্লাসিয়ো মার্চ মাসে প্রস্তাবটিতে স্বাক্ষর করার কথা রয়েছে।
সিটির পাবলিক স্কুল সিস্টেমে বিদ্যমান অলিখিত বৈষম্য বিদূরণের নিমিত্ত এডভোকেট, শিক্ষাবিদ এবং নিম্বআয়ের পরিবারগুলোর পক্ষ থেকে দীর্ঘকাল ধরে দাবি জানিয়ে আসছিলেন। আবার বিল ডি ব্লাসিয়ো প্রশাসন শিক্ষা ব্যবস্থায় সমতা ফিরিয়ে আনার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারই পটভূমিতে এই উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে বলে জানা যায়। চ্যান্সেলর কারানজা এই ক্যাপিটাল প্ল্যানটিকে অপর বড় পদক্ষেপের প্রতিনিধি হিসেবে অভিহিত করেছেন। কারানজা বলেন, অ্যাক্সিসিবল ভবনগুলোতে অধিকতর নতুন আসন সংযোজন এবং প্রতিটি শ্রেণীকক্ষে এয়ারকন্ডিশনিং ব্যবস্থা স্থাপনের মাধ্যমে আমরা আমাদের শিক্ষার্থীদের সাফল্য লাভের চাহিদাগুলো পূরণ করছি।
সিটির ১৮ হাজার পাবলিক স্কুলকে কারানজার ক্যাপিটাল প্ল্যানের আওতায় আনা হবে বলে জানা গেছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী, অ্যাডভোকেট ফর চিলড্রেনসহ অন্যান্য অ্যাডভোকেটদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ২০২৪ সাল ৭৫০ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে প্রতিটি ডিস্ট্রিক্টের এক-তৃতীয়াংশ সিটি স্কুলকে শারীরিক বৈকল্যযুক্ত ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য পুরোপুরি অ্যাক্সিসিব্যল করা হবে। কিছু দিন আগে প্রকাশিত এক তথ্যানুযায়ী সিটির পাবলিক স্কুলগুলোর প্রতি ৬টির মধ্যে ১টি বা ১৬% পুরোপুরি অ্যাক্সিসিব্যল।
পরিকল্পনার আওতায় প্রায় ৮.৮ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে কমপক্ষে ৮৮টি নতুন ভবন নির্মাণ করা হবে এবং নতুন ৫৭ হাজার আসনবিশিষ্ট শ্রেণীকক্ষও তৈরি করা হবে। তাছাড়া অস্থায়ী ট্রেইলার থেকে পাবলিক স্কুলে শ্রেণীকক্ষ স্থানান্তর বাবত ২৩০ মিলিয়ন ডলার এবং ইন্টারনেট ব্যবস্থার সম্প্রসারণ ও স্কুলের সাইবার সিকিউরিটি বাবত ৭৫০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় করা হবে। তাছাড়া ২০২১ সালের মধ্যে বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষগুলোতে এয়ারকন্ডিশনিং চালু করা হবে। তদুপরি হোমলেস ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ১২ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে স্কুলভিত্তিক ১০০ অতিরিক্ত কোঅর্ডিনেটর নিয়োগ করা হবে বলেও কারানজা জানান। জানা মত ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে সিটিতে ১ লাখ ৫ হাজার হোমলেস শিক্ষার্থী ছিল বলে জানা গেছে। এ সকল ছাত্র-ছাত্রীর সিংহভাগ কুকুরকুন্ডুলি পাকিয়ে বন্ধুবান্ধব এবং নিকটজনদের গৃহে বাস করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here