মনোনয়নে মহাজোট হিন্দুদের পাত্তা দেয়নি

6

শিতাংশু গুহ

হজ্ব নিয়ে কু-মন্তব্য করায় মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়েছিলেন লতিফ সিদ্দিকী। এবার তিনি টাঙ্গাইল-৪ থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন, পাননি। স্বতন্ত্র নির্বাচন করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন। পঙ্গু সাংবাদিক প্রবীর শিকদার ফরিদপুর-১ থেকে স্বতন্ত্র নির্বাচন করবেন। সেই আসনে আওয়ামী লীগের মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার রাজাকারপুত্র বেয়াই মোশাররফ হোসেন মনোনয়ন পেয়েছেন।
গতবার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছিলেন ১৭ জন সংখ্যালঘু। এবার আরো কম? হেফাজত ও ওলামা লীগের দাবি ছিলো হিন্দুদের মনোনয়ন না দেয়ার। তারা জিতেছেন। হিন্দুরা হেরেছেন। সবার লক্ষ্য এখন বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট কতজন হিন্দুকে নমিনেশন দেয়! অবশ্য চূড়ান্ত মনোনয়ন এখনো হয়নি, তবু বলা যায়, “মর্নিং শোজ দ্য ডে”।
বদির আসনে বধূ, লাউয়ের বদলে কদু। রানার আসনে পেয়েছেন রানার বাবা। বরিশালে বাপ্-বেটা নমিনেশন পেয়েছেন। বাগেরহাট-১ (ফকিরহাট-মোল্লাহাট ও চিতলমারী) আসনে শেখ হেলাল উদ্দিন, বাগেরহাট-২ (বাগেরহাট সদর ও কচুয়া) শেখ হেলাল উদ্দিনের ছেলে শেখ সারহান নাসের তন্ময়। তারানা হালিম কি দোষ করেছেন কে জানে, তিনি নমিনেশন পাননি।
সিইসির ভাগ্নে এস এম শাহজাদা সাজু নৌকা পেয়েছেন, পটুয়াখালী-৩। তবে ঐক্যফ্রন্ট সিইসির অপসারণ চেয়েছে। সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ নির্বাচনী তফসিল স্থগিত চেয়ে মামলা করেছেন। শেষরক্ষা হয়নি এটর্নী জেনারেলের, তিনি নৌকা পাননি। ভাগ্য খুলেছে, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ডঃ আব্দুল মোমেনের। আবুল মাল মুহিতের আসনে তিনি মনোনয়ন পেয়েছেন।
খুলনা-১ এ আওয়ামী লীগ পঞ্চানন বিশ্বাসকে মনোনয়ন দিয়েছে। জাতীয় পার্টির সুনীল শুভ রায় ঘোষণা করেছেন তিনি সেই আসনে মহাজোট মনোনীত প্রার্থী ? শেখ হাসিনার কানের ডাক্তার প্রাণ গোপাল দত্ত মনোনয়ন না পাওয়াটা আশ্চর্যের বিষয়। শোনা যায়, ভাইভাবোর্ডে তার পক্ষে বলার মত কেউ ছিলোনা। ঠাকুরগাঁও ২ আসনে প্রবীর রায়; দিনাজপুর-২ ডঃ মানবেন্দ্র রায় মানব; চাঁদপুর ৩ আসনে অ্যাডভোকেট সুজীদ রায় নন্দী; ফরিদপুর ১ আসনে ডঃ দিলীপ কুমার রায়; পিরোজপুর ১ আসন দিপ্তীশ চন্দ্র হালদার; ব্রাম্মণবাড়িয়া ১ আসনে আদেশ চন্দ্র দেব; বাগেরহাট ৪ আসনে প্রবীর রঞ্জন হাওলাদার নমিনেশন পাননি। পাওয়া উচিত ছিলো। মনোনয়ন পাননি, বরিশাল ২ আসনে অধ্যক্ষ সুখেন্দু শেখর বৈদ্য; মাগুরা ১ আসনের পঙ্কজ সাহা; মৌলভীবাজার ৪ আসনে রনধীর কুমার দেব। অথচ ভূমি দস্যু দবিরুল ইসলাম নমিনিশন পেয়েছেন।
তবে চাঁদপুরে সুজিত নন্দীর মনোনয়ন না পাওয়াটা অবাক করা? অসীম উকিল পেয়েছেন নেত্রকোনা-৩ থেকে। আওয়ামী লীগ চাইলে ৫০জন হিন্দুকে নমিনেশন দিতে পারতো, দেয়নি কারণ মোল্লাদের চাপ ছিলো। তবে এতে হিন্দুদের বিগড়ে যাবার সম্ভাবনা থাকলো। গত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুন্সিগঞ্জ -১ আসন থেকে নৌকা প্রতীকে বিপুলসংখ্যক ভোটে জয়লাভ করেছিল সুকুমার রঞ্জন ঘোষ। তিনি নমিনেশন পাননি।
চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন চৌধুরীর পুত্র নওফেল এবার নৌকার মাঝি। গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীর সুব্রত ঠাকুর নৌকা পাননি, তিনি মতুয়া। মতুয়ারা বিপক্ষে গেলে খবর আছে ? সিলেটে সুলতান মনসুর ‘জয় বাংলা; জয় ধানের শীষ’ শ্লোগান দিয়েছেন। ঠিকানার প্রতিষ্ঠাতা সাবেক এমপি এমএম শাহীন বিকল্পধারা থেকে এই আসনে প্রতিদ্ধন্দ্বিতা করতে পারেন। বিএনপি-তে এবার “জয় বাংলা, জিয়ার সৈনিক-এক হও, দুনিয়ার মজদুর- এক হও, নারায়ে তাকবির-আল্লাহু আকবার, জয় শ্রী রাম, বুদ্ধ, যিশু, বাংলাদেশ জিন্দাবাদ, পাহাড়ী সমতলবাসীর স্লোগান একইমঞ্চ থেকে উচ্চারিত হচ্ছে? সত্যিকার জাতীয়তাবাদ?
শহীদুল ইসলাম বাবুল নাটোর-১ এ ((বাগাতিপাড়া-লালপুর) নৌকার মাঝি। স্থানীয়রা জানাচ্ছেন, তিনি রাজাকার পুত্র; তার বাবা ছিলেন স্থানীয় শান্তি কমিটির সভাপতি। শহীদুল ইসলাম বাবুলের অতীতও অন্ধকারাচ্ছন্ন। নৌকা এবার হেফাজত, ওলামা লীগ, প্রচ্ছন্ন জামাত, মাদক ব্যবসায়ী, খুনি, ধর্ম ব্যবসায়ী হাইব্রীডে ভরপুর। নৌকা এখন সবার ঠিকানা, তবে হিন্দুদের জন্যে নৌকায় স্থান সংকোচন হয়ে গেছে।
আওয়ামী লীগ থেকে সংখ্যালঘু যারা ইতোমধ্যে মনোনয়ন পেয়েছেন, তারা হচ্ছেন, (১). পঞ্চানন বিশ্বাস খুলনা -১; (২). নারায়ন চন্দ্র চন্দ খুলনা -৫; (৩). রণজিৎ চন্দ্র রায় যশোর -৪; (৪). স্বপন ভট্টাচার্য যশোর -৫; (৫). বীরেন সিকদার মাগুরা -২; (৬). মানু মজুমদার নেত্রকোণা -১; (৭). অসীম কুমার উকিল নেত্রকোনা -৩; (৮). পংকজ দেবনাথ বরিশাল -৪; (৯). মৃণাল কান্তি দাস মুন্সিগঞ্জ -৩; (১০). জয়া সেনগুপ্তা সুনামগঞ্জ -২; (১১). ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু বরগুনা -১; (১২). সাধন কুমার মজুমদার নওগাঁ -১; (১৩). রমেশ চন্দ্র সেন ঠাকুরগাঁও -৩। কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা (খাগড়াছড়ি) ও বীর বাহাদুর উ শৈ সিং (বান্দরবান)। বিস্তারিত আসছে।
বিএনপিতে তেমন হিন্দু নেতা নেই, তারপরও এবার অনেক হিন্দু মনোয়ন চেয়েছে। এই দলে যেসব হিন্দু মনোনয়ন পাচ্ছেন, (১). গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ঢাকা -৩; (২). অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী মাগুরা -২; (৩). অ্যাডভোকেট গৌতম চক্রবর্তী টাঙ্গাইল -৬, (৪). জয়ন্ত কুমার কুন্ডু ঝিনাইদহ -১; (৫). অধ্যাপক পরিতোষ চক্রবর্তী রংপুর -২। এছাড়াও হিন্দু সম্প্রদায় থেকে যারা মনোনয়ন পেতে পারেন, বা ফর্ম কিনেছেন, তাদের মধ্যে, (১). তরুন দে ব্রাহ্মণবাড়িয়া -২; (২). মিল্টন বৈদ্য মাদারীপুর -২; (৩). রমেশ দত্ত রাজশাহী -৬; (৪). স্নেহাংশু সরকার কুট্টি পটুয়াখালী -১। কেউ কেউ ভাবছেন, বিএনপি এবার আওয়ামী লীগ থেকে বেশি হিন্দু মনোনয়ন দিয়ে চমক সৃষ্টি করবে। এজন্যে আমাদের আর মাত্র ক’টি দিন অপেক্ষা করতে হবে।
নিউইয়র্ক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here