ঠিকানার কবিতাগুচ্ছ

5

‘রাত পোহালে বাহাবা’

শামীম আরা ডোরা

কোথায় আছেন কেমন আছেন।
নাম না জানা সে সব বীরাঙ্গনা,
কোন আঙিনায় বসাবো তারে
সে নামটি জানি না!

কোথায় আছেন কেমন আছেন-
নাম না জানা যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা।
সকালবেলা রোদের মত,
বাংলার স্বাধীনতা!

কোথায় আছেন, কেমন আছেন
পুত্রহারা বাবা-মা
প্রশ্নমুক্ত হয়ে বলতুম
আর তো কান্না না!

শকুন জানোয়ারের ক্রোধ, ঔদ্ধত্য,
চোখের নিমেষে শেষ,
সবুজ শ্যামল ভূখ- বাংলা,
বাঙালি জাতির দেশ!

আসুক জরা, আসুক মৃত্যু
আসুক কালবৈশাখীর ঘনঘটা
জন্ম আমার, মৃত্যু আমার, এদেশ আমার
কীর্তিমান পথহাঁটা।

যাদের ত্যাগে আঁধার কেটে
পূর্ব দিগন্তে সোনালী আভা
তাদের তরে হাজারো সালাম
রাত পোহালো বাহাবা।
-নিউ ইয়র্ক।

ভয়

নূরুন্নেছা চৌধুরী রুনী

স্বদেশ থেকে ফিরতে সবাই স্বদেশ প্রীতি আনে
আমার ভান্ড বোঝাই কেবল হতাশা ও টেনসনে।
কোথায় রেখে এলাম আমার স্বজন বাছাধন
প্রাণ উতলা রইতে নারি অশান্ত এই মন।
মুক্ত-স্বাধীন বাংলাদেশের বাতাস ভীষণ ভারী
ভুখানাঙ্গা মৃত আত্মার কেবল আহাজারি।
পথে ঘাটে ধর্ষিতা হয় কন্যা শিশু নারী
সয় না যাতনা তাই শরমে যে মরি।
খুন ছিনতাই রাহাজানি সদাই মনে ভয়
আতঙ্ক আর সংশয়ে সুনিদ্রা কি হয়?
সামাজিক মূল্যবোধের চরম অবক্ষয়
পথ চলতে প্রতিক্ষণে দুর্ঘটনার ভয়।
গুম হওয়ার ভয় ডাকাতের ভয়
ক্ষমতাসীনের রোষের ভয়
মিথ্যা মামলার ভয়
অবিচারের পাল্লা ভারী
কোথায় নির্ভয়?
নেই শুধু লোকভয় খোদাভীতি লাজ ভয়
বাংলার ললাটে দেখি অশনি সঙ্কেত
একাত্মতা লুপ্ত আজ ফুঁসছে জাতিভেদ
ভয়ে ভয়ে ভাবি আজ নিশ্চিত লয়,
বাংলার অস্তিত্বে বুঝি বিলুপ্তির ক্ষয়
কালের করাল গ্রাস গিলছে সময়
সময়ের গ্রাসে আজ আমাদের ভয়।
বাফেলো।

পৃথিবী বড় সঙ্কীর্ণ আজ তার

সাহেরা আফজা

আজ তার নাই সাংসারিক কোন দায়
ক্লাশ নিতে যাবার নেই তাড়া
নেই মিটিং নেই সেমিনার কোন
বয়ে যায়না টিভিতে খবর দেখার সময়
চেক বই বিল লেখা বাড়ির খুটিনাটি কাজ
কিছুই ভাবায় না আর তাকে
ছেলে মেয়ের নামধাম কে কোথায়
নাতি নাতনির করেনা আর খোঁজ
টিভির সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলে
তর্ক করে পর্দায় দেখা লোকেদের সাথে
চেহারার সাদৃশ্যে ডাকে ওদের নাম ধরে!
খাবার খেতে খেতে উঠে গিয়ে ধোয় হাত
করে আসে দাঁত ব্রাশ খেয়ে উঠেই ক্ষণের পরে
প্রস্তুত সে আবার খাবার বলে।
বাথরুম বড্ড প্রিয় জায়গা তার আজ
বিড়ম্বনা তোয়ালে শুকানো নিয়ে
বুকসেল্ফ কিংবা চেয়ারে রাখে মেলে
ওয়াশক্লথ শুকাতে দেয় লাইটের পরে
ফ্যামিলি রুমে কাটে তার সিংহভাগ সময়
রেকলাইনারে বসে সম্মুখে খোলে টিভি
জাঙ্ক মেইলগুলো পড়ে বহু যতœ সহকারে
একত্রিত করে স্ট্যাপলারে গেঁথে
আজ শুধু ওয়াশক্লথ শুকানো আর
স্ট্যাপল করা কাগজপাতি বার বার
এ কাজ তার গোটা পৃথিবী
সঙ্কীর্ণ ছোট্ট তার পৃথিবী।
[ আলজাইমারাক্রান্ত ডঃ আফজানে নিয়ে]
পেনসিলভেনিয়া।
মাদকের ভয়াবহতা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here