ফিলিস্তিনিদের ভাত-পানিতে মারবে ইসরাইল

5

বিশ্বচরাচর ডেস্ক : আটক ফিলিস্তিনি বন্দীদের সুযোগ-সুবিধা আরও কমিয়ে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ইসরাইল। গত ৩ জানুয়ারি এ বিষয়ে নতুন পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন দেশটির জননিরাপত্তা বিষয়কমন্ত্রী গিলাড এরদান। পরিকল্পনার আওতায় বন্দিদের পানি সরবরাহ আগের থেকে কমিয়ে দেয়া হবে। জেলখানায় বন্ধ করা হবে খাবার রান্নার কাজ। কমিয়ে দেয়া হবে পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাতের সংখ্যা। এ পরিকল্পনার মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদের পানিতে মারা নীলনকশা করল ইসরাইল। দেশটির মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের পর কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হবে। এই উদ্যোগকে মানবাধিকার হরণের আরও একটি নজির বলে কঠোর সমালোচনা করেছেন ফিলিস্তিনি নেতারা ও মানবাধিকার সংস্থাগুলো। খবর আলজাজিরার। প্রিজনার সাপোর্ট অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস অ্যাসোসিয়েশন নামে ফিলিস্তিনের একটি বেসরকারি সংস্থার হিসাবে চলতি বছরের ডিসেম্বরে ইসরাইলি কারাগারে আটক থাকা ফিলিস্তিনি রাজনৈতিক বন্দীদের সংখ্যা সাড়ে পাঁচ হাজারে পৌঁছেছে। এদের মধ্যে ২৩০ শিশু ছাড়াও রয়েছেন ৫৪ নারী। মানবাধিকার গ্রুপগুলো বলছে ১৮০০-এরও বেশি বন্দীর চিকিৎসা প্রয়োজন। এদের মধ্যে প্রায় ৭০০ জন মারাত্মক ও দুরারোগ্য অসুখে ভুগছে।
ইসরাইলি মন্ত্রী গিলাড এরদান বলেন, নতুন পরিকল্পনায় কারাগারে রান্নার অধিকার বাতিল এবং বন্দীদের টেলিভিশন দেখার সুযোগ সীমিত করা হবে। বন্দীদের দৈনিক ব্যবহার্য পানির পরিমাণ নির্দিষ্ট করে দেয়া হবে জানিয়ে ইসরাইলি মন্ত্রী বলেন, বন্দীরা প্রতিদিন কতবার গোসল করতে পারবে তা-ও নির্দিষ্ট করে দেয়া হবে। মুক্তিকামী ফিলিস্তিনিদের প্রতিরোধ আন্দোলনের সংগঠন হামাস সংশ্লিষ্ট বন্দীদের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ এরই মধ্যে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বলে জানান ইসরাইলি মন্ত্রী। নতুন পরিকল্পনায় ইসরাইলের পার্লামেন্ট নেসেট-এর সদস্যদের ফিলিস্তিনি বন্দেিদর সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ বন্ধ করা হবে। হামাস ও তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী ফিলিস্তিনি গ্রুপ ফাতাহ সংশ্লিষ্ট বন্দীদের আলাদা রাখার নীতি বাতিল করা হয়েছে জানিয়ে এরদান বলেন, সংগঠনের ভিত্তিতে বন্দীদের আলাদা রাখার কারণে তাদের সাংগঠনিক পরিচয় জোরালো হয়েছে। এরদানের পরিকল্পনার নিন্দা জানিয়েছে ফিলিস্তিনি কারাবন্দীদের কমিশন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here