বোকা বউ আর স্বামী

5

এক তরুণী বউয়ের কিছুদিন ধরে মনে হচ্ছিল, তার স্বামী ক্রমে দূরে সরে যাচ্ছে। তাকে আর আগের মতো ভালোবাসছে না। কাজেই সে বিষয়টা পরীক্ষা করে দেখতে চাইল। কোথায় যাচ্ছে তা না জানিয়ে গেলে স্বামীর প্রতিক্রিয়া কী হয় দেখা দরকার? সিদ্ধান্ত নিলো স্বামীকে একটা চিঠি লিখে জানাবে, সে খুবই বিরক্ত এবং তার সঙ্গে আর থাকতে চায় না। তাই বাড়ি ছেড়ে চলে গেছে। যদিও তার মনে হলো এটা একটা হীনকাজ এবং খুবই ছেলেমি। তবু স্বামীর প্রতিক্রিয়া তো তার জানতেই হবে।


যেই ভাবনা সেই কাজ। চিঠিটা লিখে ফেলল সে। সেটা রেখে দিল শোয়ার ঘরের টেবিলের ওপর। তারপর খাটের তলায় ঢুকে লুকিয়ে রইল। অপেক্ষা করল স্বামীর ফিরে আসা পর্যন্ত। তার আশা ছিল, স্বামীর চেঁচামেচি শুনবে কিংবা স্বামীকে খুব মনখারাপ করতে দেখবে। একসময় স্বামী ঘরে ফিরল। টেবিলের ওপর চিঠিটা দেখতে পেয়ে তুলে নিলো হাতে। তারপর সেটা পড়ল। কিছুক্ষণ নীরব থেকে কলম নিলো। কিছু লিখল চিঠিটার নিচে। তারপর পোশাক পাল্টাতে লাগল। পোশাক পাল্টানোর সময় মনের সুখে শিস বাজাল। গান গাইল। নাচল। দেখে মনে হল, খুবই আনন্দ উপভোগ করছে সে। বউ চলে গেছে বলে তার কোনো দুঃখ হচ্ছে না। তার হৃদয়ে কোনো বেদনা নেই।
খাটের নিচে বউ খুব দুঃখ পেল। হৃদয় ভেঙে যাচ্ছিল খান খান হয়ে। কিন্তু বিষয়টা আরও খারাপের দিকে মোড় নিলো। স্বামীটি ফোন তুলে নিলো হাতে। একটা নম্বরে ফোন দিলো। খাটের নিচ থেকে বউটি তার স্বামীকে কারও সঙ্গে কথা বলতে শুনল।
‘হাই ডার্লিং।’ স্বামী ফোনে বলল, ‘আমি মাত্রই পোশাক পাল্টালাম। কিছুক্ষণের মধ্যেই তোমার সঙ্গে দেখা হবে। প্রতারণা করছি দেখে আমার বোকা বউটা শেষ পর্যন্ত আমাকে ছেড়ে চলে গেছে। তাকে বিয়ে করাটাই ছিল ভুল।

আশা করছি, তুমি আর আমি খুব তাড়াতাড়ি মিলিত হবো। শিগগিরই দেখা হচ্ছে, প্রিয়তমা।’ ফোনে কথা শেষ করে স্বামী বেরিয়ে গেল ঘর থেকে। বাইরের দরজা খোলা এবং বন্ধ হওয়ার শব্দ শুনল বউটি। তার স্বামী বাইরে চলে গেছে। হতাশ হয়ে সজল চোখে খাটের নিচ থেকে বেরিয়ে এলো বউটি। টলতে টলতে টেবিলের কাছে গেল। অবিশ্বাসী স্বামী তার চিঠির নিচে কী লিখেছে তা পড়তে লাগল। চোখে একরাশ কান্না নিয়ে বউটি পড়লÑ ‘খাটের নিচে আমি তোমার পায়ের পাতা দেখতে পেয়েছি, বোকা মেয়ে আমি বাইরে গেলাম কিছু খাবার কিনে আনতে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here