মৃত এমপির নামে এলো টেলিফোন বিল

4

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : নবম সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর আসন থেকে নির্বাচিত অ্যাডভোকেট লুৎফুল হাই সাচ্চু মারা গেছেন ৯ বছর আগে। কিন্তু বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল) খাতায় এখনো জীবিত তিনি। ‘সম্মানিত সংসদ সদস্য’ সম্বোধন করে তার নামে একটি ‘ভুতুড়ে’ টেলিফোন বিল পাঠিয়েছে বিটিসিএল। এ ধরনের বিল হাতে পেয়ে হতবাক সাবেক এই সাংসদের পরিবারের সদস্যরা।

লুৎফুল হাই সাচ্চুর ছোট ভাই আল-মামুন মনোয়ারুল হাই জানান, ঢাকার গুলশান-২ নম্বর সার্কেলের ৯০ নম্বর সড়কের ‘মুন্তেছেরা’ অ্যাপার্টমেন্টে থাকতেন সাচ্চু। ২০০৮ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর সংসদ সচিবালয়ের সেবা বিভাগ থেকে ওই বাসায় বিটিসিএল’র একটি টেলিফোন সংযোগ দেওয়া হয়। যার নম্বর ৯৮৮৪০৮০। ২০১০ সালের ২২ নভেম্বর সাচ্চু মারা যাওয়ার এক বছর পর তার পরিবার ওই ফ্ল্যাটটি ভাড়া দিয়ে অন্য জায়গায় চলে যায়। তখন থেকে ওই টেলিফোন সংযোগটি আর ব্যবহারও হয়নি। সম্প্রতি ওই ফ্ল্যাটের ঠিকানায় ২০০৯ সালের এপ্রিল থেকে ২০১৮ সালের অক্টোবর মাস পর্যন্ত সময়ের মোট ১৫ হাজার ২৮১ টাকার একটি বকেয়া বিলের চিঠি পাঠিয়েছে বিটিসিএল। বিলের কপিতে সম্মানিত সংসদ সদস্য-২৫৫, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ সম্বোধন করা হয়েছে। ওই বিলে অধিকাংশ মাসেই ৮০ ও ১৬০ টাকা করে খরচ দেখানো হয়। জানতে চাইলে আল-মামুন মনোয়ারুল হাই বলেন, ‘উনার (সাচ্চু) মৃত্যুর পর আমি নিজে গিয়ে মৃত্যুর সনদপত্র সংসদ সচিবালয়ে জমা দিই। পাশাপাশি তার নামে বরাদ্দ করা বাসাটিও বুঝিয়ে দেওয়া হয়। সে সময় তার প্রাপ্ত ২১ দিনের ভাতাও আমাদের সংসদ সচিবালয় থেকে দিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু এখন বিটিসিএলের এই বিল পেয়ে আমরা হতবাক।’

তিনি আরও বলেন, ‘কারণ তিনি (সাচ্চু) সংসদ সদস্য হওয়ার পর সরকারিভাবে তাকে সংযোগটি দেওয়া হয়। মৃত্যুর পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সেটি প্রত্যাহার করে নেবেÑ এমনটাই হওয়া স্বাভাবিক। কারণ সংসদ সচিবালয় তো জানে তিনি প্রয়াত।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here