সৌদি সরকারের সমালোচনায় মানবাধিকার গোষ্ঠী

9

বিশ্বচরাচর ডেস্ক : প্রায় এক বছর কোনো ধরনের অভিযোগ ছাড়া আটকে রাখার পর নারী অধিকার কর্মীদের বিচারের মুখোমুখি করায় সৌদি আরবের তীব্র সমালোচনা করেছে বিভিন্ন মানবাধিকার গোষ্ঠী। গত ১ মার্চ সৌদি সরকারি কর্মকর্তাদের এ সংক্রান্ত ঘোষণার পর তীব্র নিন্দা জানায় তারা।
বিনা অভিযোগে প্রায় এক বছর জেলে আটক রাখা হয় এসব নারী অধিকার কর্মীকে। তাদের কারো কারো ওপর নির্যাতন ও যৌন নিপীড়ন চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সৌদি সরকার এসব নির্যাতনের অভিযোগ তদন্ত করার জন্য কোনো আগ্রহ দেখায়নি বলে মন্তব্য করেছেন মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মধ্যপ্রাচ্যবিষয়ক উপপরিচালক মাইকেল পেজ। তিনি বলেন, ‘যেখানে আটক নারীকর্মীদের নির্যাতনকারীদের সাজা হওয়া উচিত, সেখানে নির্যাতিতরাই উল্টো সাজা পেতে চলেছেন।’
নারীদের গাড়ি চালানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তের মাত্র এক মাস আগে ছয়জনেরও বেশি নারী অধিকার কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের বেশির ভাগের বিরুদ্ধে নিরাপত্তাব্যবস্থার অবনতি ঘটানো এবং শত্রুদের সহায়তা করার অভিযোগ আনা হয়। গ্রেপ্তার করার পর সরকারপন্থী সংবাদপত্রগুলো লাল রঙে ‘বিশ্বাসঘাতক’ শব্দটি লিখে প্রথম পাতায় তাদের কয়েকজনের ছবি ছাপায়। পরে অবশ্য কাউকে কাউকে মুক্তি দেওয়া হয়।
নারী অধিকার কর্মীদের বিচারের মুখোমুখি করার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালও। এ সিদ্ধান্তকে ‘অধিকারকর্মীদের ওপর রাষ্ট্রের চাপ আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে যাওয়ার নিদর্শন’ হিসেবে আখ্যায়িত করে তাদের মুক্তি দিতে আহ্বান জানিয়েছে তারা।
অতি রক্ষণশীল দেশ সৌদিতে প্রায়ই চ‚ড়ান্ত গোপনীয়তার মধ্যে সাজা দেওয়া হয়। তবে আইন কর্মকর্তারা কোনো নির্দিষ্ট অভিযোগ দেখাননি আটক নারী অধিকার কর্মীদের বিরুদ্ধে। বিচারের তারিখও ঘোষণা করা হয়নি এখনো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here