মুঙ্গোশি ও অ্যান্ড্রিয়ার জীবনাবসান

2

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন দুই লেখককে হারিয়েছে বিশ্বসাহিত্য। তারা হচ্ছেন জিম্বাবুয়ের কবি ও ঔপন্যাসিক চার্লস মুঙ্গোশি ও ব্রিটিশ লেখক অ্যান্ড্রিয়া লিভি।
মুঙ্গোশি ৭১ বছর বয়সে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি মারা যান। ১০ বছর ধরে তিনি স্নায়ুরোগে ভুগছিলেন। উপন্যাস, নাটক, কবিতা, ছোটগল্পসহ এ পর্যন্ত তার ১৮টি বই প্রকাশিত হয়েছে। নিজের মাতৃভাষা ‘শোনা’ ও ‘ইংরেজিতে’ লেখা এসব বই জার্মান, রাশিয়ান, জাপানিসহ বেশ কিছু ভাষায় প্রকাশিত হয়েছে। এসব বইয়ের মধ্যে ‘কামিং অব দ্য ড্রাই সিজন’, ‘ওয়েটিং ফর দ্য রেইন’, ‘এনদিকে কুপিনদানা কোয়ামাজুভা’ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

অ্যান্ড্রিয়া লিভি মারা যান গত ১৪ ফেব্রুয়ারি। তার বয়স হয়েছিল ৬২ বছর। তিনি ক্যান্সারে ভুগছিলেন। জ্যামাইকান বংশোদ্ভূত অ্যান্ড্রিয়া তার লেখায় জ্যামাইকান ব্রিটিশ জনগণের জীবন ও কৃষ্টি বেশ নিখুঁতভাবে তুলে ধরেছেন। ১৯৫৬ সালে লন্ডনে জন্ম নেওয়া অ্যান্ড্রিয়া চতুর্থ উপন্যাস ‘স্মল আইল্যান্ড’-এর মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে খ্যাতি কুড়ান। এটি ২০০৪ সালে অরেঞ্জ পুরস্কার, হুইটবুক প্রাইজের বর্ষসেরা বইয়ের খেতাব ও কমনওয়েলথ রাইটারস প্রাইজ জিতে নেয়। ‘এভরি নাইট ইন দ্য হাউজ বারনিন’, ‘লং সং’, ‘সিক্স স্টোরিজ অ্যান্ড অ্যান এসেই’ ইত্যাদি তার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here