তাসকিনের বিশ্বকাপ খেলা অনিশ্চিত

2

স্পোর্টস রিপোর্ট : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল টি-২০) যে ইনজুরিতে পড়েছিলেন, এখনো খেলায় ফিরতে পারেননি পেসার তাসকিন আহমেদ। ইনজুরির জন্য নিউজিল্যান্ড সফরের দলে থাকতে পারেননি। ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগেও কোনো দল পাননি। গত ৪ এপ্রিল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের একাডেমি ভবন মাঠে ছোট্ট রান আপে বোলিং শুরু করেছেন। কিন্তু বিশ্বকাপ দল ঘোষণা করতে আর ১৩ দিন বাকি। ১৮ এপ্রিল বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করা হবে। এর আগে কী তাসকিন নিজেকে পুরো ফিট প্রমাণ করতে পারবেন? আর তাই আলোচনাও শুরু হয়ে গেছে, তাসকিনের বিশ্বকাপ খেলা অনিশ্চিত।

গত ১ ফেব্রুয়ারি বিপিএলের ম্যাচে বাউন্ডারিতে ফিল্ডিং করতে গিয়ে বাঁ পা মচকে যায় এই পেসারের। গোড়ালিতে চোট পান। এ ইনজুরির জন্য নিউজিল্যান্ড সফরেও দলের সঙ্গে যেতে পারেননি। সেই থেকে গত ৩ এপ্রিল পর্যন্ত বল হাতে নিতে পারেননি তাসকিন। অবশেষে তিনি গত ৪ এপ্রিল দুই মাস পর ছোট্ট রান আপে বোলিং করেন। এমন সময় বোলিং শুরু করতে পেরেছেন, যখন বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করতে আর বেশি দেরি নেই। বিশ্বকাপ শুরু হতে ৫০ দিনের ওপরে বাকি। কিন্তু দলতো ১৮ এপ্রিল দেয়া হবে। এর মধ্যে তাসকিন যে পুরোপুরি গতির সঙ্গে বোলিং করার জন্য ফিট, সেই প্রমাণ কিভাবে দেবেন?

ঢাকা লীগে এবার ‘প্লেয়ার্স ড্রাফটে’ বি প্লাস ক্যাটাগরিতে ছিলেন তাসকিন। ১৮ লাখ টাকা মূল্য ছিল তার। গত ১ এপ্রিল থেকে খেলায় ফিরবেন, এমন ভাবনাও করা হয়েছিল। কিন্তু কোনো দলই তাসকিনকে দলে ভেড়ায়নি। গত ১ এপ্রিল ফিরবেন, তাও যে নিশ্চিত ছিল না। তাই হলো। এখনও খেলার জন্য পুরোপুরি ফিট হতে পারেননি এ পেসার। ঢাকা লিগের সুপার লিগে তার খেলার আশা রয়েছে। সুপার লিগ শুরু হতে ১৫ এপ্রিল হয়ে যাবে। বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করতে তখন বাকি থাকবে আর দুই দিন। যেহেতু দল পাননি তাসকিন, তাই খেলতে পারবেন না। যদি কোনো দল শেষ পর্যন্ত তাকে নেয় তাহলে খেলবেন। তা-ও এক ম্যাচের বেশি খেলতে পারবেন না। এই এক ম্যাচ দেখে তাসকিনকে কী নির্বাচকরাও দলে ভেড়ানোর মতো চিন্তা করবেন? বিশ্বকাপের আগে হয়তো ঠিক হয়ে যাবেন তাসকিন। হাতে সময়ও আছে। কিন্তু যদি পুরোপুরি ঠিক না হন। তাই নির্বাচকদেরও শেষ পর্যন্ত তাকে নিয়ে ভাবতে হচ্ছে।

তাসকিন অবশ্য আত্মবিশ্বাসী। সময়মতোই ঠিক হয়ে যাবেন। গত ৪ এপ্রিল ছোট্ট রান আপে ৩০টা বল করেন তাসকিন। তিনি বলেন, ‘মাশআল্লাহ ভালো লাগছে যে, বোলিং সেশন শেষ করতে পারলাম গত ৪ এপ্রিল। প্রায় সোয়া দুই মাস পরে। ফিজিও শাওন ভাইয়ের আন্ডারে বর্তমানে আছি আমি, বায়েজিদ ভাই দেবাশীষ স্যারও দেখেছে। শাওন ভাই শুরু থেকেই দেখতেছে। উনি আমার বেশ কিছু ফিটনেস টেস্ট নিয়েছে। সবগুলো ফিটনেস টেস্টে উন্নীত হয়েই বোলিং শুরু করা আজকে গত ৪ এপ্রিল। একটা প্রসেসের মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে। যদি ফিটনেস টেস্টগুলোর মধ্য দিয়ে যেতে না হতো তাহলে আরও আগেই বোলিং শুরু করতে পারতাম। ফিটনেস টেস্টে পাস করেছি এখন বোলিংও শুরু করলাম। ৩০টা বল করলাম শর্ট রানআপে।
আল্লাহ চাইলে ইনটেনসিটি সামনে আরও বাড়তে থাকবে। এক দিন পরপর বোলিং করতে হবে। আশা করছি সুপার লিগ থেকে খেলব। কতটুকু উন্নতি হচ্ছে সেটার ওপর নির্ভর করে কোন ম্যাচ থেকে খেলব। আল্লাহ যা করবে ভালোর জন্য করবেÑ সেটাই আমার বিশ্বাস।’ দেখা যাক এখন গত বিশ্বকাপে বোলিং ঝড় তোলা তাসকিনের কপালে বিশ্বকাপ খেলা জুটে কি না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here