অপারেশনকালে শিশুর মৃত্যু, বিল নিয়ে পালালেন চিকিৎসক-কর্মচারীরা

2

বগুড়া : বগুড়া শহরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে টনসিল অপারেশনকালে ৬ বছর বয়সী স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। গত ৮ এপ্রিল শহরের সূত্রাপুর এলাকায় মালেকা নার্সিং হোমে এ ঘটনা ঘটে। মৃত শিশু হুমাইরা আকতার সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার নলকা কায়েম গ্রামের কৃষক হারুনার রশিদের মেয়ে। অপারেশনের বিল আদায় ও চার ঘণ্টা অভিনয়ের পর গত ৮ এপ্রিল রাত সাড়ে ৮টায় চিকিৎসকরা মৃত শিশুকে সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরের হাসপাতালে রেফার্ড করেন বলে স্বজনরা অভিযোগ করেন। এ ঘটনার কথা জেনে বিক্ষুব্ধ লোকজন ক্লিনিকে উপস্থিত হয়ে ভাঙচুরের চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।
জানা গেছে, সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার নলকা কায়েম গ্রামের কৃষক হারুন অর রশিদের মেয়ে হুমাইরা আকতার স্থানীয় কায়েমগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। তার টনসিলে সমস্যা হলে গত দুদিন আগে বগুড়া শহরের শেরপুর সড়কে সূত্রাপুর এলাকায় মালিকা নার্সিং হোমে আনা হয়। সেখানে ওই শিশুকে নাক, কান, গলা বিশেষজ্ঞ ও সার্জন ডা. সাইদুজ্জামানকে দেখান হয়।
শিশুর মামা আলমগীর তালুকদার জানান, ওই চিকিৎসক গত ৮ এপ্রিল বেলা ৩টায় অপারেশনের সময় ঠিক করেন। অপারেশন ফি ধরা হয় সাড়ে ১১ হাজার টাকা। গত ৮ এপ্রিল সকাল সাড়ে ১০টায় হুমাইরাকে ক্লিনিকে ভর্তি করানো হয়। বেলা ৩টায় তাকে অপারেশন থিয়েটারে (ওটি) নিলে আধা ঘণ্টা পর ডা. সাইদুজ্জামান ভেতরে ঢোকেন। বিকেল ৪টায় চিকিৎসক বাইরে এসে জানান, অপারেশন সাকসেসফুল, রোগীকে বেডে দেয়া হবে। এরপর নার্স ও বয় হুমাইরাকে বেডে দিয়ে যায়।
কিন্তু হুমাইরার পালস না থাকা ও শ্বাস-প্রশ্বাস না নেয়ায় স্বজনদের সন্দেহ হয়। তারা চিকিৎসক ও নার্সকে বিষয়টি জানালে তারা কর্ণপাত না করে জানান, রোগী ভালো আছে শিগগিরই জ্ঞান ফিরবে। এর আগেই অপারেশন ফি আদায় করা হয়। রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত জ্ঞান না ফেরায় স্বজনরা অস্থির হয়ে ওঠেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here