টেস্ট থেকে আনুষ্ঠানিক অবসরের ঘোষণা দিলেন মাহমুদউল্লাহ

    ফাইল ছবি

    ঠিকানা অনলাইন : গত জুন-জুলাইতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ চলাকালে ক্রিকেটের এই ফরম্যাট থেকে অবসর নেওয়ার কথা সতীর্থদের জানিয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে সে সময় গণমাধ্যম ও বিসিবিকে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছুই জানাননি। ২৪ নভেম্বর বুধবার রাতে বিসিবি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়েছে, টেস্ট থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে অবসর নিয়ে ফেলেছেন টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক।

    জিম্বাবুয়ে সফরে দলের মধ্যে অবসরের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছিলেন রিয়াদ। ম্যাচের শেষ দিন বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়েরা তাকে গার্ড অব অনারও দিয়েছিলেন। কিন্তু দলের মধ্যে সবাই জানলেও ঘোষণাটা আনুষ্ঠানিকভাবে এত দিন দেননি তিনি। মিডিয়ায়ও এ নিয়ে কথা বলেননি। এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন।

    এবারও পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ চলাকালে মাহমুদউল্লাহকে টেস্ট সিরিজে খেলার ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানিয়ে দেন, ‘কখনোই না (টেস্টে ফিরবেন না)।’

    বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন যদিও মাহমুদউল্লাহর এমন হঠাৎ অবসর নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছিলেন এবং আশা করেছিলেন রিয়াদকে টেস্ট থেকে অবসর নিতে দেবেন না। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণাটা দিয়েই দিলেন তিনি। সাদা পোশাকের ক্রিকেট তিনি আর খেলবেন না।

    বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অন্যতম খেলোয়াড় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বুধবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘আমি অনেক দিন ধরেই খেলেছি এমন একটা ফরম্যাটকে বিদায় বলা সহজ নয়। আমি সব সময়ই সর্বোচ্চ জায়গায় পৌঁছাতে চেয়েছি। আমার বিশ্বাস, টেস্ট ক্যারিয়ার শেষ করার এটাই সঠিক সময়।’

    মাহমুদউল্লাহ আরও বলেন, ‘আমি কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই বিসিবির সভাপতির প্রতি, যিনি আমি টেস্ট দলে ফেরার পর সমর্থন দিয়েছেন। আমার সতীর্থ ও সাপোর্ট স্টাফদেরও ধন্যবাদ জানাতে চাই আমাকে উৎসাহ দেওয়ার জন্য ও আমার সামর্থ্যে বিশ্বাস করায়।’

    টেস্ট থেকে অবসর নিলেও টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে চালিয়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি, ‘আমি টেস্ট থেকে অবসর নিলেও ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টিতে নিজের সেরাটা দেওয়ার জন্য চেষ্টা করব সাদা বলের ক্রিকেটে।’

    ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অভিষেক হওয়ার পর দেশের হয়ে ২০০টি টেস্ট ম্যাচে মাঠে নেমেছেন তিনি। ৫ সেঞ্চুরির সঙ্গে হাঁকিয়েছেন ১৬ ফিফটি। ৩৩.৪৯ গড়ে এই ফরম্যাটে ২৯১৪ রান এসেছে তার ব্যাট থেকে। চলতি বছর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্ট খেলেছিলেন তিনি।

    ঠিকানা/এনআই