বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সৈয়দ এম হোসেনের লেখা গান ‘পিতা’ অন্তর্জালে আলোড়ন তুলেছে

    ঠিকানা রিপোর্ট : লসএঞ্জেলস প্রবাসী সৈয়দ এম হোসেন বাবুর লেখা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে মৌলিক গান ‘পিতা’ অন্তর্জালে আলোড়ন তুলেছে। তিনি গান লেখার পাশপাশি গল্প-কবিতা লিখছেন। তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘আলো আঁধারের খেলা’ এবারের বইমেলায় বের হয়েছে। আগামী বইমেলা আরেকটি কবিতার বই প্রকাশে কাজ চলছে।
    সৈয়দ এম হোসেন বাবু বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অফ লস এঞ্জেলস (বালা)’র নির্বাচিত সভাপতি। তিনি বাংলাদেশি কমিউনিটির নানা সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত। তিনি বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, যুক্তরাষ্ট্রের সভাপতি। লসএঞ্জেলসে গড়ে তুলেছেন বাংলা পাঠশালা। এর মাধ্যমে প্রবাসে বাঙালি সংস্কৃতি তুলে ধরার পাশাপাশি শিশুদের বাংলাও শেখাচ্ছেন তিনি। এম হোসেন বাবুর লেখা গান ‘পিতা’ গানটি প্রথমে এককভাবে গেয়েছেন এজানূর রহমান। গানটিকে আরো হৃদয়গ্রাহী করতে এবার একাধিক শিল্পীর সমন্বয়ে রেকর্ড করা হয়েছে। হৃদয়ছোঁয়া উপস্থাপনায় গানটিতে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা অর্জনে বঙ্গবন্ধুর আজীবন সংগ্রাম, বাংলার দুঃখি মানুষের মুখে হাসি ফোটাবার জন্য তাঁর নিরন্তর প্রচেষ্টার কথা তুলে ধরা হয়েছে। চার মিনিটের গানে যেনো উঠে এসেছে বাংলার ইতিহাস, বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস। ভাষা আন্দোলন, ছয় দফা এবং স্বাধীনতা। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন এবং গণতন্ত্রের মানসকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার কথা। গানটির সুর-সংগীত করেছেন এজানূর রহমান। বাংলাদেশ থেকে কণ্ঠ দিয়েছেন বাংলাদেশ রেডিও এবং টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত ৮০ দশকের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী সৈয়দ তারেক, মঞ্জু সাহা, দিনা মাসুদ, সুলতানা রহমান আন্না ও এজানূর রহমান। যুক্তরাষ্ট্রের জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী শহীদ আহম্মেদ মিঠু, আদনান খান, হাফিজুর রহমান অ্যাপেলো ও কাবেরী রহমান। এ গানের একাংশের দৃশ্যধারণ করা হয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি জাদুঘর ধানমন্ডি-৩২ নম্বরের বাড়ি, শহীদ মিনার ও জাতীয় স্মৃতি সৌধে আরেক অংশে আমেরিকায় হলিউড এবং বেভারলি হিলসে।